কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন? ১০ টি এক্সক্লুসিভ নিয়ম

আপনি যদি পড়াশোনায় অমনোযোগী হয়ে থাকেন, তাহলে কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন বা পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়ার উপায় সম্পর্কে জানতে চান তবে আজকের লেখাটি আপনার জন্য।

 

কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন ১০ টি এক্সক্লুসিভ নিয়ম
কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন ১০ টি এক্সক্লুসিভ নিয়ম

কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন

বই পড়ার জন্য যখন আমরা টেবিলে বসি তখন কিছুক্ষণ পড়ার পরেই আমাদের মনোযোগ অন্যদিকে চলে যায়। এসময় যদি আমাদের কাছে মোবাইল ফোন রাখি তাহলে দেখা যায় মোবাইল ফোনের ফেসবুকে কিংবা অন্য কোন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের যে একাউন্ট গুলো রয়েছে আমাদের সেই একাউন্টের মধ্যে বিভিন্ন নোটিফিকেশন আসে, আমরা সেই নোটিফিকেশন গুলো চেক করার জন্য অস্থির হয়ে যাই, যার ফলে দেখা যায় আমাদের পড়াশোনায় ক্ষতি হয়।

তাই আপনি সবসময় চেষ্টা করবেন যখন পড়তে বসবেন তখন আপনার হাতের কাছে থেকে যত ধরনের ইলেকট্রিক ডিভাইস আছে সবকিছু দূরে রাখার জন্য। তাই কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন এ নিয়ে নিচে ১০ টি এক্সক্লুসিভ ট্রিক্স বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

অল্প সময়ে ১০ টি ভোকাবুলারি শেখার সহজ উপায়ঃ অল্প সময়ে ১০ টি ভোকাবুলারি শেখার সহজ উপায় 2024 

০১। সঠিক একটি স্থান নির্বাচন

আপনাকে যদি প্রশ্ন করা হয় কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন ? তাহলে প্রথমেই আপনাকে পড়াশোনা করার জন্য সঠিক একটি স্থান নির্বাচন করতে হবে। তাই পড়াশোনা করার জন্য এমন একটা ঘর নির্বাচন করুন যেখানে বাইরের কোন শব্দ আসবে না এবং যে জায়গাটা নিরিবিলি থাকবে।এরপরে আপনি যেখানে পড়তে বসবেন সেই জায়গাটি অবশ্যই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে রাখবেন সবসময় তাহলে আপনার নিজে থেকেই পড়তে ইচ্ছা করবে।

পড়ার জায়গাটা অবশ্যই সব সময় গোছালো রাখবেন এলোমেলো করে রাখলে কিন্তু আপনার নিজেরও পড়তে বসতে আর ইচ্ছা করবে না, তাই সবসময় আপনার বই খাতা এবং পড়ার টেবিল সবকিছু গুছিয়ে রাখার চেষ্টা করবেন, তাহলে পড়াশোনায় মনোযোগ অনেকগুণ বেড়ে যাবে।

খুবই মূল্যবান ১০ টি পড়াশোনা করার সঠিক নিয়মঃ খুবই মূল্যবান ১০ টি পড়াশোনা করার সঠিক নিয়ম 2024

০২। পড়ালেখায় মনযোগ বিনষ্টকারী জিনিস দূরে রাখা

কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা জানার জন্য আপনাকে পড়ালেখা করার সময় মনোযোগ নষ্ট করে দিতে পারে সেসব জিনিস দূরে রাখা পড়াশোনা করার সময় যে সকল জিনিস আপনার মনোযোগ নষ্ট করে দিতে পারে সেসমস্ত জিনিস যতটা সম্ভব পারেন দূরে রাখার চেষ্টা করবেন। কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, ডিজিটাল যেসমস্ত ডিভাইস গুলো রয়েছে সমস্ত কিছু আপনি পড়তে বসার সময় আপনার কাছ থেকে দূরে রাখবেন।

কারণ আপনার মোবাইল ফোনে কিংবা কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপে যদি বারবার নোটিফিকেশন আসে,তাহলে কিন্তু আপনার পড়ার মনোযোগ নষ্ট হয়ে যাবে।যদি সম্ভব হয় তাহলে আপনি বসে পড়বেন সেই রুমের দরজা বন্ধ করে তারপরে লেখাপড়া করতে পারেন,যাতে কেউ আপনার মনোযোগ নষ্ট করতে না পারে।

[সুপার সাজেশন] ১৯ তম শিক্ষক নিবন্ধন প্রস্তুতিঃ [সুপার সাজেশন] ১৯ তম শিক্ষক নিবন্ধন প্রস্তুতি | ১৯ তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার 2024

৩/ একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করে নেওয়া

একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করে নেওয়ায় হলো কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তার সঠিক উপায়। আপনি পড়াশোনা করে ভবিষ্যতে কি হতে চান তা আগে থেকে চিন্তা করে নিবেন।আপনি পড়াশোনা কেন করছেন এবং পড়াশোনা করে কি হতে চান এটার যদি কোন লক্ষ্য না থাকে,তাহলে কিন্তু আপনি পড়াশোনা মনোযোগ দিতে পারবেন না।

তাই অবশ্যই আপনি কেন পড়াশোনা করেছেন এবং পড়াশোনা করে ভবিষ্যতে কি হতে চান এই বিষয়টি সম্পর্কে আপনাকে আগেই লক্ষ্য নির্ধারণ করে নিতে হবে। তাহলে আপনার পড়াশোনায় মনোযোগ আনতে অনেক সুবিধা হবে।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আপনি একটি কাজ করছেন এবং সে কাজটি করলে আপনার লাভটা কি হবে এটা যদি আপনি না জানেন তাহলে কিন্তু কাজটি করে আপনি কখনোই সফল হতে পারবেন না বা কাজটি করতেও আপনার মনোযোগ থাকবে না।

তাই যে কোন কাজ শুরু করার আগে অবশ্যই জেনে নেওয়া উচিত যে সেই কাজটি করলে আপনার লাভ কি বা সেই কাজটি কেন করছেন বা এই কাজটি করলে আপনি ভবিষ্যতে কি করতে পারবেন বা পরবর্তীতে আপনি এই কাজটির মাধ্যমে কি কি অর্জন করতে পারবেন এই বিষয় সম্পর্কে অবশ্যই আপনাকে আগে থেকেই জেনে নেওয়া উচিত। তারপরে সেই কাজটি শুরু করা উচিত তাহলে সেই কাজে সফল হওয়ার সম্ভাবনা অনেক অনেক গুণে বেড়ে যায়।

১৮ তম নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার সাজেশনঃ ১৮ তম নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার সাজেশন ২০২৪ | এক্সক্লুসিভ সকল বিষয়

০৪। রুটিন তৈরি করা

এখন আপনি যদি কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা জানতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমেই একটি রুটিন তৈরি করে নিতে হবে। আপনি কোন সময় কোন সাবজেক্ট নিয়ে পড়বেন সেটার একটা রুটিন তৈরি করে নেবেন তাহলে আপনার পড়াশোনায় মনোযোগ অনেক গুণে বেড়ে যাবে।আপনি যে সাবজেক্টে দুর্বল যে সাবজেক্ট কম বোঝেন সেই সাবজেক্ট এর উপরে আপনি একটু বেশি সময় দিতে পারেন এবং যে সাবজেক্টে আপনি মোটামুটি ভাবে বুঝেন সেই সাবজেক্ট এর উপরে আপনি একটু কম সময় দিতে পারেন রুটিনের মধ্যে।

রুটিন তৈরি করে নিলে একটা নিয়মমাফিক লাইনের মধ্যে চলে আসবেন এবং তাহলে আপনার একটা প্রতিদিনের রুটিন থাকবে যে আপনি কোন সময় পড়তে বসবেন এবং কোন সময় আপনার কি কি কাজ। রুটিন বানিয়ে আপনি যদি সেই অনুযায়ী পড়াশোনা শুরু করেন,তাহলে আপনার পড়াশোনা আগের থেকে অনেক ভালো হবে। রুটিন তৈরি করার সময় একটা বিষয় লক্ষ্য রাখবেন একটানা ভাবে কখনোই পড়তে যাবেন না পড়ার সময় কিছুটা হলেও 5 থেকে 10 মিনিটের জন্য বিরতি দিবেন।

আপনি যদি বিরতি দিয়ে কিছুটা সময় তারপরে আবার পড়া শুরু করেন তাহলে আপনার পড়ালেখায় আবার মনোযোগ আসবে কিন্তু একটানা ভাবে পড়লে দেখা যায় কিছুক্ষণ পড়ার আর পড়তে ইচ্ছা করে না বা পড়তে ভালো লাগে না,তাই কিছুটা সময় বিরতি দিয়ে!তারপরে আবার নতুন করে পড়া শুরু করবেন। এই টেকনিকটি আপনি কাজে লাগাতে পারেন পড়াশোনা মনোযোগী হওয়ার জন্য।

০৫। সবসময় টেবিলে বসে পড়ার অভ্যাস তৈরি করা

সবসময় টেবিলে বসে পড়ার অভ্যাস তৈরি করাই হলো কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তার জন্য সঠিক উপায়। আপনার যদি বিছানায় শুয়ে কিংবা বিছানায় হেলান দিয়ে পড়ার অভ্যাস থাকে,তবে আজকে থেকেই এই বদ অভ্যাসটি আপনাকে বাদ দিতে হবে। আপনি যদি খাটের উপরে শুয়ে বই পড়েন কিংবা খাটের উপরে হেলান দিয়ে পড়েন,তাহলে কিছুক্ষণ পর দেখা যাবে যে আপনার ঘুম চলে আসতে পারে।আপনাকে তাই এই অভ্যাসটিকে বাদ দিতে হবে এবং সব সময় পড়ার টেবিলে বসে পড়তে হবে।

০৬। নিজের উপরে সবসময় আস্থা রাখা

এখন আপনি যদি কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা জানতে চান তাহলে প্রথমেই আপনাকে নিজের উপরে সবসময় আস্থা রাখতে হবে। আপনাকে অনেকে অনেক কথা বলতে পারে যে আপনাকে দিয়ে কিছু হবে না বা আপনি পারবেন না এই সমস্ত কথা শুনে আপনি ভেঙ্গে পড়বেন না্,‌ অবশ্যই আপনি নিজের উপরে নিজে ভরসা রাখবেন।

আপনাকে দিয়ে কোন কাজে করানো অসম্ভব নয় যদি আপনি নিজের উপরে ভরসা রাখেন।কিন্তু আপনি যদি নিজের উপর নিজে ভরসা না রাখেন,তাহলে আপনি সহজ কাজও করতে পারবেন না, তাই সবসময় নিজের উপরে ভরসা রাখবেন তাহলেই সবকিছু করতে পারবেন।

০৭। নিয়মিত ব্যায়াম বা খেলাধুলা করা 

প্রতিদিন কিছুটা সময় ব্যায়াম বা খেলাধুলা করাও কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তার জন্য সঠিক উপায়। প্রতিদিন কম করা হলো এক ঘন্টা সময় রাখবেন ব্যায়াম অথবা খেলাধুলা করার জন্য। প্রতিদিন খেলাধুলা করলে আপনার মন ভালো থাকবে এবং মাইন্ড ফ্রেশ থাকবে যার ফলে আপনি পড়াশোনায় মনোযোগী হতে পারবেন।

খেলাধুলা কিংবা ব্যায়াম করার জন্য আপনি বিকেলের দিকে যেকোন সময় এক ঘন্টা রাখতে পারেন, যেসময় আপনি ব্যায়াম কিংবা খেলাধুলা করবেন।

০৮। পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমানো

কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা ১০ টি এক্সক্লুসিভ ট্রিক্স এর মধ্যে পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমানো অন্যতম। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা রাতের বেশিরভাগ সময় ফেসবুক কিংবা ইউটিউবে ভিডিও দেখে সময় নষ্ট করে।যার ফলে দেখা যায় রাত্রে যে পরিমাণে ঘুমানো লাগে ঠিক সে পরিমাণে তাদের ঘুম হয় না,এরফলে পড়াশোনার উপরে প্রভাব পড়ে।

একজন সুস্থ মানুষের অবশ্যই প্রতিদিন ছয় থেকে আট ঘন্টা পর্যন্ত ঘুমানো উচিত।কিন্তু এর থেকে কম যদি কেউ ঘুমায়,তাহলে তার বিভিন্ন রকমের সমস্যা হতে পারে,তাই অবশ্যই প্রতিদিন রাতের বেলা ৬ থেকে ৮ ঘন্টা পর্যন্ত ঘুমাবেন।

০৯। বিভিন্ন সোর্স থেকে পড়াশোনা করা

কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা ১০ টি এক্সক্লুসিভ ট্রিক্স এর মধ্যে বিভিন্ন সোর্স থেকে পড়াশোনা করাও সবচেয়ে সহজ উপায়। আপনি পড়ালেখা বই থেকে করার পাশাপাশি বিভিন্ন সোর্স থেকে করতে পারেন।আপনারা কয়েকজন বন্ধু মিলে গ্রুপ স্টাডি করতে পারেন তারপরে কোন বিষয় সম্পর্কে না বুঝতে পারলে ইন্টারনেটে সার্চ করতে পারেন।অর্থাৎ আপনি বইয়ের সাবজেক্টটি বুঝতে পারবেন না সেই সাবজেক্টের যে পয়েন্টে না বুঝবেন সেটির উপরে আপনি ইউটিউবে গিয়ে সেই বিষয়ের উপরে টিউটোরিয়াল দেখতে পারেন কিংবা গুগলে গিয়ে সেই বিষয়ের উপরে সার্চ করে বিভিন্ন আর্টিকেল পরে ধারণা নিতে পারেন।গুগলে আপনারা সার্চ করলে অনেক শিক্ষামূলক ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন সেই সকল ওয়েবসাইট থেকে আপনি আপনার প্রশ্নের সমাধান পেয়ে যাবেন।

আশা করি এই পদ্ধতি গুলো মেনে আপনি যদি পড়াশোনা করেন তাহলে আপনার পড়াশোনা অনেক সহজ হয়ে যাবে এবং আপনার পড়াশোনা করতেও অনেক ভালো লাগবে।পড়াশোনা করতে আর বোরিং ফিল হবে না।

১০। পড়ার সময় পানি খাওয়া

কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা ১০ টি এক্সক্লুসিভ ট্রিক্স এর মধ্যে পড়ার সময় পানি খাওয়া জনপ্রিয় একটি উপায়। বইপড়ার সময় আমাদের মস্তিষ্কের অনেক খাটনি হয় আর যার ফলে এই খাটনি প্রয়োজন পূরণ করতে দরকার হয় প্রচুর পরিমাণে পানির! পড়ার সময় আপনি হাতের কাছে একটি পানির বোতল রেখে দিতে পারেন।বই পড়ার ফাঁকে ফাঁকে পানি খেতে পারেন।আর তা না হলে দেখা যাবে কিছু সময় বই পড়ার পরে আপনার মনোযোগ হারিয়ে যাবে।

উপসংহার

আজকের আর্টিকেল থেকে আপনারা কিভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী হবেন তা সম্পর্কে জানতে পারলেন। বিভিন্ন শিক্ষামূলক তথ্য প্রতিদিন জানার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটের সাথেই থাকবেন। ধন্যবাদ

Visited 51 times, 1 visit(s) today